মঙ্গলবার , ৭ নভেম্বর ২০২৩ | ৪ঠা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. London Mirror Specials
  2. অন্যান্য
  3. আইন-আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. খুলনা
  6. খেলাধুলা
  7. চট্রগ্রাম
  8. জেলার খবর
  9. ঢাকা
  10. তথ্য-প্রযুক্তি
  11. প্রবাসের কথা
  12. বরিশাল
  13. বাংলাদেশ
  14. বিনোদন
  15. ব্যাবসা-বাণিজ্য

গাজায় অবিলম্বে যুদ্ধ-বিরতির আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

প্রতিবেদক
Newsdesk
নভেম্বর ৭, ২০২৩ ১২:০৯ পূর্বাহ্ণ

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সোমবার গাজায় অবিলম্বে যুদ্ধ-বিরতি ও অঞ্চলটিতে অবৈধ দখলদারিত্ব বন্ধের আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ‘গাজায় মানবিক সহায়তা নিশ্চিত ও অবিলম্বে যুদ্ধ-বিরতির জন্য আমি সকল পক্ষের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি। আমি এই ভয়াবহ যুদ্ধ, নির্বিচার হত্যাযজ্ঞ ও অবৈধ দখলদারিত্ব বন্ধে ভুমিকা রাখার জন্য বিশ্ব নেতৃবৃন্দের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।’ তিনি ‘ইসলামে নারীর মর্যাদা ও ক্ষমতায়ন’ শীর্ষক আন্তর্জাতিক সম্মেলনের উদ্বোধনী অধিবেশনে সম্মানিত অতিথি হিসেবে বক্তব্য প্রদানকালে এ আহ্বান জানান।

সৌদি আরবের জেদ্দার হিলটন হোটেলে অনুষ্ঠিত সোমবার ইসলামে নারীর মর্যাদা বিষয়ক আন্তর্জাতিক সম্মেলনে তিনি এই গণহত্যাকে অমানবিক ও বর্বরোচিত বলে উল্লেখ করেন।

ইসলামে নারীর মর্যাদা বিষয়ক আন্তর্জাতিক সম্মেলনে সম্মানীত অতিথি হিসেবে প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্যে পশ্চিমাদের কথিত মানবাধিকারের সমালোচনা করে অবিলম্বে ফিলিস্তিনে যুদ্ধবিরতির জন্য বিশ্ব নেতাদের প্রতি আহ্বান জানান।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, একটি স্বাধীন ও সার্বভৌম ফিলিস্তিন রাষ্ট্রের জন্য মুসলিম বিশ্বকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে।

শেখ হাসনিা জানান, বাংলাদেশ সবসময় ফিলিস্তিনের পক্ষে থাকবে।

১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে দুই লাখ নারী ও কিশোরীর অমানবিক নিপীড়নের কথা উল্লেখ করেন। তুলে ধরেন ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট তার বাবা-মাসহ পরিবারের নারী ও শিশুদের নির্মম হত্যার কথাও।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ ২০১৭ সালে মিয়ানমারের হাজার হাজার নির্যাতিত রোহিঙ্গা নারী ও শিশুকে আশ্রয় দিয়েছে।

এসময় প্রধানমন্ত্রী পাঁচটি প্রস্তাব তুলে ধরেন। প্রধানমন্ত্রী প্রস্তাবগুলো-

প্রথমত, ফিলিস্তিনে অবিলম্বে সংঘাতের অবসান এবং সেখানে সংঘটিত মানবতাবিরোধী অপরাধের- বিশেষ করে নারী ও শিশুদের উপর অপরাধের বিচার।

দ্বিতীয়ত, সমস্ত অপরাধ, সহিংসতা, বৈষম্য ও নারীদের বিরুদ্ধে ক্রমবর্ধমান ইসলামোফোবিয়াকে ‘না’ বলুন।

তৃতীয়ত, এসডিজি-৫ পূরণের লক্ষ্যে লিঙ্গ সমতা অর্জন ও নারীদের ক্ষমতায়নের দিকে যথাযথ মনোযোগ দিন।

চতুর্থত, মুসলিম নারীরা যেন ইচ্ছেমতো স্বাধীনভাবে জনসমক্ষে নিজেদের উপস্থাপন করতে পারেন- তা নিশ্চিত করুন।

পঞ্চমত, নারী ক্ষমতায়ন ও মূল স্রোতে নারীদের ভূমিকার উজ্জ্বল উদাহরণ বাংলাদেশ, বন্ধুপ্রতিম মুসলিম রাষ্ট্রগুলোর সাথে এ সংক্রান্ত অভিজ্ঞতা বিনিময়ে প্রস্তুত।

প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্যে বাংলাদেশেরে নারীর ক্ষমতায়নে সরকারের নেওয়া বিভিন্ন পদক্ষেপ তুলে ধরেন।

এর আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মক্কায় পবিত্র মসজিদুল হারামে ওমরাহ পালন করেন। এসময় তিনি বাংলাদেশের জনগণের পাশাপাশি সমগ্র মুসলিম উম্মাহর শান্তি, সমৃদ্ধি ও অগ্রগতি কামনা করেন।

সর্বশেষ - খেলাধুলা