বৃহস্পতিবার , ২৬ অক্টোবর ২০২৩ | ৪ঠা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. London Mirror Specials
  2. অন্যান্য
  3. আইন-আদালত
  4. আন্তর্জাতিক
  5. খুলনা
  6. খেলাধুলা
  7. চট্রগ্রাম
  8. জেলার খবর
  9. ঢাকা
  10. তথ্য-প্রযুক্তি
  11. প্রবাসের কথা
  12. বরিশাল
  13. বাংলাদেশ
  14. বিনোদন
  15. ব্যাবসা-বাণিজ্য

শাপলা চত্বরেই মহাসমাবেশ করবে জামায়াত

প্রতিবেদক
Newsdesk
অক্টোবর ২৬, ২০২৩ ৪:২১ অপরাহ্ণ

২৮ অক্টোবর পূর্ব ঘোষণা মোতাবেক রাজধানীর মতিঝিলের শাপলা চত্বরেই সমাবেশ করতে চায় জামায়াত। মতিঝিলে কিছুতেই জামায়াতকে সমাবেশ করতে দেওয়া হবে না পুলিশের পক্ষ থেকে এমনটি জানানোর পর দলটির ভারপ্রাপ্ত আমির অধ্যাপক মুজিবুর রহমান বৃহস্পতিবার বলেছেন, আগামী ২৮শে অক্টোবর মতিঝিল শাপলা চত্বরেই মহাসমাবেশ করবে জামায়াত। আর এই মহাসমাবেশ সফলে প্রশাসন এবং দেশবাসীর সহযোগিতা চেয়েছেন তিনি।

বৃহস্পতিবার মহাসমাবেশ সফল করার লক্ষ্যে আয়োজিত এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা জানান।

লিখিত বক্তব্যে জামায়াত আমির বলেন, বাংলাদেশের সংকটময় এক কঠিন রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে আমরা আপনাদের সামনে উপস্থিত হয়েছি। আপনারা নিশ্চয়ই অবগত আছেন, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন আর মাত্র কিছু দিন পরই অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। অথচ এখনও নির্বাচনের কোনো পরিবেশ তৈরি হয়নি।

সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরি করা পূর্ব শর্ত। কিন্তু সরকার লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরি করার কোনো চিন্তাই করছে না। দেশের অধিকাংশ রাজনৈতিক দল, সুশীল সমাজ, সাংবাদিক, বুদ্ধিজীবী এবং বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষসহ গোটা জাতি মনে করে অবাধ, সুষ্ঠু ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচনের লক্ষ্যে নির্দলীয়-নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রতিষ্ঠার কোনো বিকল্প নেই। কারণ এর আগে কেয়ারটেকার সরকারের অধীনে অনুষ্ঠিত নির্বাচনগুলো দেশে-বিদেশে ব্যাপক গ্রহণযোগ্যতা পেয়েছিল। কিন্তু সরকার গণতন্ত্রকামী মানুষের সে দাবি পাশ কাটিয়ে যেনতেন প্রকারে একতরফা নির্বাচনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। এ লক্ষ্যে বিনা ভোটের সরকার দলীয় বিবেচনায় প্রশাসনকে ঢেলে সাজিয়েছে।

তিনি বলেন, ২০০৬ সালে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা সদ্য অবসরপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি কেএম হাসানকে বিএনপির লোক আখ্যা দিয়ে তার অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন হবে না বলে তিনি আন্দোলন শুরু করেছিলেন যাতে তিনি কেয়ারটেকার সরকার প্রধানের দায়িত্ব নিতে না পারেন। ২০০৬ সালের ২৮ অক্টোবর লগি বৈঠা দিয়ে পিটিয়ে বহু মানুষকে হত্যা করে দেশে এক ভয়াবহ অরাজকতা তৈরি করা হয়েছিল। জাতির প্রশ্ন দলীয় লোক বিবেচনায় বিচারপতি কেএম হাসানের অধীনে যদি সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব না হলে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন কীভাবে সম্ভব?

শাপলা চত্বরের সমাবেশ নিয়ে জামায়াতের ভারপ্রাপ্ত আমির বলেন, বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী একটি নিয়মতান্ত্রিক ও গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দল। বাংলাদেশের প্রতিটি গণতান্ত্রিক আন্দোলনে জামায়াতে ইসলামীর ঐতিহাসিক ভূমিকা রয়েছে। অথচ জামায়াতে ইসলামীকে সভা-সমাবেশ ও মিছিল করতে দেওয়া হচ্ছে না। প্রশাসনের নিকট বারবার লিখিতভাবে আবেদন জানানো সত্ত্বেও প্রশাসন সভা-সমাবেশ বাস্তবায়নে সহযোগিতা না করে উল্টো বাধা দিচ্ছে। দেশে যাতে সুষ্ঠু ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন না হয়, সেজন্য আমিরে জামায়াতসহ শীর্ষস্থানীয় নেতাদের এবং অন্যান্য রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীদের মিথ্যা মামলা দিয়ে কারাগারে আটক করে রেখেছে। এটা জাতির জন্য একটি অশনি সংকেত।

তিনি বলেন, জামায়াতে ইসলামী তার সাংবিধানিক অধিকার অনুযায়ী আগামী ২৮ অক্টোবর শনিবার রাজধানী ঢাকা মহানগরীর শাপলা চত্বরে শান্তিপূর্ণ মহাসমাবেশ বাস্তবায়নে সহায়তা চেয়ে পুলিশ কমিশনারের নিকট লিখিতভাবে অবহিত করেছে। পক্ষপাতদুষ্ট এক পুলিশ কর্মকর্তা বলেছেন, ‘জামায়াতকে সমাবেশ করতে দেওয়া হবে না।’ পুলিশের দায়িত্ব হল শান্তিপূর্ণ সভা-সমাবেশ বাস্তবায়নে সহযোগিতা করা, বাধা দেওয়া নয়। তার এই বক্তব্য অসাংবিধানিক, অগণতান্ত্রিক, এখতিয়ার বহির্ভূত ও বেআইনি। আমরা পক্ষপাত দুষ্ট পুলিশ কর্মকর্তার বক্তব্যের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

অধ্যাপক মুজিবুর রহমান বলেন, রাষ্ট্রের আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর প্রধান দায়িত্ব হচ্ছে রাজনৈতিক দলসমূহের সভা-সমাবেশ ও মিছিল শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠানে সহযোগিতা করা। মিছিল, মিটিং, সভা-সমাবেশ প্রত্যেক নাগরিকের সাংবিধানিক অধিকার। এ অধিকার যাতে তারা প্রয়োগ করতে পারে, সে ব্যাপারে সহযোগিতা করা পুলিশের দায়িত্ব। কিন্তু আমরা লক্ষ্য করছি বিগত সময় অসংখ্যবার দেশের বিভিন্ন স্থানে সমাবেশ করার সহযোগিতা চেয়ে আবেদন করা হলেও প্রশাসনের পক্ষ থেকে সাড়া পাওয়া যায়নি। এটি সম্পূর্ণ অগণতান্ত্রিক ও অসাংবিধানিক। পক্ষপাত দুষ্ট ভূমিকা থেকে বের হয়ে আসার জন্য আমরা আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।

গ্রেফতার নেতাদের মুক্তির দাবি জানিয়ে জামায়াতের এই জৈষ্ঠ নেতা বলেন, বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য, কেন্দ্রীয় প্রচার ও মিডিয়া বিভাগের সেক্রেটারি এবং ইসলামী ছাত্রশিবিরের সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি গুরুতর অসুস্থ এডভোকেট মতিউর রহমান আকন্দকে ২৫ অক্টোবর বেলা সাড়ে ১১টায় তার উত্তরার বাসা থেকে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী বেআইনিভাবে গ্রেফতার করেছে। আমরা অবিলম্বে তার মুক্তি দাবি করছি। সেই সঙ্গে আমিরে জামায়াত ডা. শফিকুর রহমানসহ গ্রেফতার সব নেতাকর্মীর নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করছি।

সর্বশেষ - খেলাধুলা

আপনার জন্য নির্বাচিত

সরকারকে পরাজিত করাই আমাদের মূল লক্ষ্য: ফখরুল

১৩৩৪ ক্যান বিদেশি বিয়ারসহ দুই জন গ্রেফতার

মিয়ানমারের মর্টারশেলের আঘাত বাংলাদেশে, নিহত দুই

ফাঁস হওয়া ভিডিও নিয়ে অবশেষে মুখ খুললেন তানজিন তিশা

আফগানিস্তানকে হারিয়ে সুপার ফোরে বাংলাদেশ

বাংলাদেশ ক্রিকেট দলকে রাষ্ট্রপতির অভিনন্দন

যুবলীগের বহিষ্কৃত সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাটের সব মামলায় জামিন, মুক্তিতে বাধা নেই ‘ক্যাসিনো সম্রাটের

‘বিএনপি গণঅভ্যুত্থান দূরে থাক, গণআন্দোলনের ঢেউও তুলতে পারেনি’

বাংলাদেশ সৃষ্টিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবদান স্মরণীয় হয়ে থাকবে: প্রধানমন্ত্রী

পাচার হওয়া টাকা উদ্ধারে ১০ দেশের সঙ্গে চুক্তি হচ্ছে: সংসদে প্রধানমন্ত্রী