All Postপ্রবাসের কথা

১০ হাজার প্রবাসী, ফেরত পাঠাবে যুক্তরাজ্য

বাংলাদেশ ও যুক্তরাজ্যের মধ্যে ফাস্ট ট্র্যাক রিটার্ন চুক্তি সই হয়েছে। এই চুক্তি আওতায় ব্রিটেনে অবস্থান করা প্রায় ১০ হাজার বাংলাদেশির অ্যাসাইলাম আবেদন প্রত্যাখ্যান হওয়ায় তাদের ফেরত পাঠানোর কথা জানিয়েছে যুক্তরাজ্য।

বৃহস্পতিবার লন্ডনের ব্রিটিশ হোমে এ সংক্রান্ত একটি চুক্তি সই হয়। পরে এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানায় লন্ডন দূতাবাস।

ওই চুক্তি সই অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করেন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিকিউরিটি সার্ভিস ডিভিশনের এডিশনাল সেক্রেটারি খায়রুল কবির মেনন। আর যুক্তরাজ্যের প্রতিনিধিত্ব করেন যুক্তরাজ্যের অবৈধ অভিবাসন বিষয়ক মন্ত্রী মাইকেল টমলিনসন।

যুক্তরাজ্যের তথ্য বলছে, ভিসা নিয়ে যুক্তরাজ্যে প্রবেশের পর দেশটির ভিসা ব্যবস্থার অপব্যবহারকারীদের মধ্যে বাংলাদেশিদের অবস্থান শীর্ষে। অভিবাসীরা গত বছরের মার্চ থেকে আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থী, কর্মী বা ভিজিটর ভিসায় ব্রিটেনে এসে রাজনৈতিক আশ্রয় দাবি করেছেন। মূলত ব্রিটেনে প্রবেশের ‘পেছনের দরজা’ হিসেবে কাজে লাগানোর প্রয়াসে এসব ভিসা ব্যবহার করেছেন তারা।

লন্ডনে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাস জানিয়েছে, মোট ১১ হাজার আবেদনের মধ্যে মাত্র পাঁচ শতাংশ আশ্রয় আবেদন সফল হয়েছে। প্রত্যাখ্যাত ১০ হাজারের বেশি বাংলাদেশিকে যুক্তরাজ্য থেকে ফেরত পাঠানো হবে।

যুক্তরাজ্যের অবৈধ অভিবাসন বিষয়ক মন্ত্রী মাইকেল টমলিনসন বলেন, এই চুক্তির অধীনে কেবল ব্যর্থ আশ্রয়প্রার্থীরাই নয়, বিদেশি নাগরিকদের যারা অপরাধী এবং যেসব ব্যক্তি ভিসা নিয়ে ব্রিটেনে প্রবেশের পর বাড়তি সময় অতিবাহিত করেছেন তাদেরও নির্বাসনের কাজ সহজতর হবে।

বিবিসির তথ্য বলছে, চলতি বছরের শুরু থেকে ২১ এপ্রিল পর্যন্ত ছয় হাজার ২৬৫ জন ছোট নৌকায় ইংলিশ চ্যানেল পাড়ি দিয়ে যুক্তরাজ্যে এসেছে। যা আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় প্রায় এক চতুর্থাংশ বেশি। ২০২৩ সালে মোট ২৯,৪৩৭ জন এইভাবে যুক্তরাজ্যে এসেছিলেন।

২০১৮ সালের পরিসংখ্যান সংগ্রহ শুরু পর ২০২২ সালে সর্বোচ্চ সংখ্যা ছিল ৪৫ হাজার ৭৫৫।

চলতি বছরের মার্চে ইংলিশ চ্যানেল পেরিয়ে সবচেয়ে বেশি এসেছে আফগানরা (৫,৭২৭ জন)। এছাড়া ইরানের তিন হাজার ৭০১ জন, তুর্কির তিন হাজার ২৭৪ জন, ইরিত্রিয়ার দুই হাজার ৮৯৫ জন, সিরিয়ার দুই হাজার ৬৪১ জন, ইরাকের দুই হাজার ৫৭৫ জন, ভিয়েতনামের দুই হাজার ৩৩৮ জন, সুদানের এক হাজার ৮৩১ জন, আলবেনিয়ার ৯১৫ জন, মিশরের ৭০২ জন, অন্য তিন হাজার ৬১৭ জন এবং ৮৬৩ জনকে শনাক্ত করা যায়নি।

২০২৩ সালে ৮৪ হাজারের এরও বেশি মানুষ যুক্তরাজ্যে অ্যাসাইলাম আবেদন করেছে। ২০২২ সালে এই সংখ্যা ছিল এক লাখ। এর মধ্যে ছোট নৌকায় করে পার হয়ে আসা মানুষের সংখ্যা ৪৫ শতাংশ।

এ সর্ম্পকিত সংবাদ

Back to top button